close(x)
 

দুই দলকে সমাবেশের অনুমতি দিয়েছে ডিএমপি

ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার খন্দকার গোলাম ফারুক

রাজধানীতে শুক্রবার (২৮ জুলাই) শুধুমাত্র দুটি দলকে সমাবেশের অনুমতি দিয়েছে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি)।

বৃহস্পতিবার (২৭ জুলাই) বিকেলে এক সংবাদ সম্মেলনে ডিএমপি কমিশনার খন্দকার গোলাম ফারুক এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, বিএনপিকে নয়াপল্টনে এবং আওয়ামী লীগের তিন সংগঠনকে বায়তুল মোকাররমের দক্ষিণ গেটে ২৩ শর্তে সমাবেশের অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

গোলাম ফারুক বলেন, সমাবেশের সময় বিএনপির নেতাকর্মীদের নাইটিঙ্গেল মোড় থেকে ফকিরাপুল মোড় পর্যন্ত সীমাবদ্ধ থাকতে হবে। এ ছাড়া নির্ধারিত এই সীমানার বাইরে সমাবেশের মাইক লাগানো যাবে না। এ ছাড়া আওয়ামী লীগের তিন সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের বায়তুল মোকাররমের দক্ষিণ গেট থেকে মহানগর নাট্যমঞ্চ এলাকা পর্যন্ত জমায়েত হতে পারবেন।

তিনি বলেন, দৈনিক বাংলা মোড় থেকে পল্টন মোড় এবং কালভার্ট রোড এই অংশে দুই দলের কেউই জমায়েত হতে পারবে না। এখানে শুধু আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী থাকবে।

ডিএমপি কমিশনার বলেন, কোনো দলই সমাবেশে লাঠিসোঁটা আনতে পারবে না। কোনো ব্যাগ বহন করা যাবে না। রাষ্ট্রদ্রোহ কোনো বক্তব্য দেওয়া যাবে না। নিজ নিজ দলের স্বেচ্ছাসেবক কর্মী যেন থাকে। উভয় পক্ষেরই কোনো নেতাকর্মী যেন নির্দিষ্ট এলাকার বাইরে যেতে না পারে—সে বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে।

গোলাম ফারুক আরও জানান, কোনো কুচক্রীমহল যেন আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটাতে না পারে সেজন্য পুলিশের পাশাপাশি সমাবেশ এলাকায় বিজিবি মোতায়েন থাকবে।

এ সময় কোথায় কোনো অভিযানে বিএনপির নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার করা হয়নি জানিয়ে তিনি বলেন, আমাদের কোনো অফিসার যদি এই ধরনের কাজে জড়িত থাকেন তাহলে তদন্ত শেষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এর আগে, গত ২২ জুলাই রাজধানীতে তারুণ্যের সমাবেশ থেকে ঢাকায় মহাসমাবেশের ঘোষণা দেয় বিএনপি। ঘোষণা অনুযায়ী রাজধানীর নয়াপল্টন বিএনপি কার্যালয়ের সামনের সড়ক অথবা সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ২৭ জুলাই সমাবেশ করতে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) কাছে চিঠি দিয়েছিল বিএনপি। কিন্তু ডিএমপির পক্ষ থেকে এই দুটি জায়গায় একটিতেও অনুমতি দেওয়া হয়নি।

ডিএমপি কমিশনার খন্দকার গোলাম ফারুক জানান, বৃহস্পতিবার কর্ম দিবস থাকায় নয়াপল্টনে সমাবেশ করলে যানজট সৃষ্টি কারণে জনদুর্ভোগ হবে। এ ছাড়া ‘হাইকোর্টের অবজারভেশন’ থাকায় সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে মহাসমাবেশ করা যাবে না। তাই, বিএনপিকে গোলাপবাগ মাঠে সমাবেশ করার পরামর্শ দেওয়া হয়।

ডিএমিপর এমন বক্তব্যের পর বুধবার (২৬ জুলাই) রাতে বিএনপির নেতারা বৈঠকে বসেন। পরে রাত ৯টার দিকে মহাসমাবেশ এক দিন পিছিয়ে শুক্রবার (২৮ জুলাই) বাদজুমা নয়াপল্টনে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে অনুষ্ঠিত হবে বলে ঘোষণা দেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

অন্যদিকে, আওয়ামী লীগের তিন সংগঠনও ২৭ জুলাইয়ের সমাবেশ একদিন পিছিয়ে ২৮ জুলাই করার ঘোষণা দেয়। রাজধানীর আগারগাঁওয়ে বাণিজ্য মেলার (পুরনো) মাঠে বিকেল ৩টায় শান্তি সমাবেশ অনুষ্ঠিত হওয়া কথা ছিল। কিন্তু রাত পার হতেই সমাবেশের স্থান নিয়ে নতুন সিদ্ধান্তের কথা জানায় স্বেচ্ছাসেবক লীগ।

সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক এ কে এম আফজালুর রহমান জানান, আওয়ামী লীগের তিন সংগঠনের ‘শান্তি সমাবেশ’ বায়তুল মোকাররমের দক্ষিণ গেটেই অনুষ্ঠিত হবে।

এরপর ডিএমপির পক্ষ থেকে দল দুটিকে তাদের পছন্দের জায়গায় সমাবেশের অনুমতি দেওয়া হয়।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *