close(x)
 

বিএনপির আন্দোলন নয়াপল্টনের কাদাপানিতে আটকে গেছে : কাদের

বিএনপির সরকার পতনের এক দফা আন্দোলন নয়াপল্টনের কাদাপানিতে আটকে গেছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেছেন, বিএনপির এক দফা খাদে পড়ে গেছে। এই এক দফা কোনো দিন বিএনপির ক্ষমতার স্বাদ পূরণ করতে পারবে না।

আজ শুক্রবার বিকেলে জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমের দক্ষিণ ফটকে আয়োজিত শান্তি সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ওবায়দুল কাদের এসব কথা বলেন। আওয়ামী লীগের তিন সংগঠন—যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ ও ছাত্রলীগ এই সমাবেশের আয়োজন করে।

শান্তি সমাবেশে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, বিএনপির এক দফা নয়াপল্টনের কাদাপানিতে আটকে গেছে। তারেক রহমান লন্ডন থেকে ফরমাশ দিচ্ছেন, এদিকে ফখরুল-আমীর খসরুরা লাফালাফি করছেন। জাতিসংঘ নাকি নির্বাচন তত্ত্বাবধান করবে। গণভবন নাকি ছেড়ে দিতে হবে। জনগণ শেখ হাসিনাকে গণভবনে বসিয়েছেন। যত দিন জনগণ চাইবেন, তত দিন শেখ হাসিনা গণভবনে থাকবেন। তারেক জিয়া কিছুই করতে পারবেন না।

‘যেদিকে তাকাই, মানুষ আর মানুষ’, উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমরা সংঘাত চাই না। আমরা সংঘাতের জন্য এই সমাবেশ করছি না। আমরা জনগণের সম্পত্তি, জানমাল পাহারা দিতে এসেছি।’

বিএনপি এখন নাকি ঢাকার প্রবেশমুখে অবস্থান নেবে—এ কথা উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘তারা রাস্তা বন্ধ করবে। আপনাদের (বিএনপি) চলার রাস্তাও বন্ধ করে দেব।’ আজকের ঢাকা তরুণ কর্মীদের নিয়ন্ত্রণে উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘গণভবন থেকে হটাবে, এত সোজা; আমরা চেয়ে চেয়ে ললিপপ খাব? আগুন নিয়ে আসবেন, পুড়িয়ে দেব হাত। ভাঙচুর করতে আসবেন, হাত ভেঙে দেব।’ তিনি বলেন, ‘চোখ রাঙাবেন না। দেশি-বিদেশি যাঁরাই আজ চোখ রাঙাচ্ছেন, তাঁদের বলে দিতে চাই, আমাদের শিকড় এ মাটির অনেক গভীরে।’

ফুলের ভেতরেও বিষধর সাপ থাকে, মন্তব্য করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘তারেক রহমান এত টাকা পেলেন কোথায়? আমেরিকার কিছু কংগ্রেসম্যানকে টাকা দেওয়া; লবিস্ট নিয়োগ করে টাকা দিয়ে কিছু লোককে জাতিসংঘ, যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূতদের কাছে চিঠি লেখেন যে বাংলাদেশে জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে নির্বাচন করতে হবে। এ দুঃসাহস তাঁরা পেলেন কোথায়?

কারা কারা ঘন ঘন লন্ডনে যাচ্ছেন, তারেক রহমানের হাতে ডলার তুলে দিচ্ছেন, তা আওয়ামী লীগ জানে বলেও উল্লেখ করেন ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, ‘ভবিষ্যতে এমপি হবেন, মনোনয়ন-বাণিজ্য করবেন, টাকা দিচ্ছেন। সে (তারেক রহমান) নিজে কোনো দিন আসতে পারবে, তার কোনো গ্যারান্টি আছে?’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাতে সাড়ে তিন ঘণ্টার বেশি ঘুমান না জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, দেশের কথা চিন্তা করে রাতে পর্যন্ত তাঁর ঘুম হারাম হয়ে যায়। সেই নেত্রী কিছুদিন ধরে বাইরে যাচ্ছেন। কেন? দেশ ভ্রমণ করতে যাননি, গিয়েছেন দেশের জনগণকে বাঁচাতে, দেশের গণতন্ত্রকে বাঁচাতে।

যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ ও ছাত্রলীগের পক্ষে যৌথ ঘোষণা
সমাবেশে যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ ও ছাত্রলীগের পক্ষে যৌথ ঘোষণা পাঠ করেন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক আফজালুর রহমান। তিনি বলেন, বিএনপি দেশে একটি অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরিতে মেতে উঠেছে। নীলনকশা বাস্তবায়নে নৈরাজ্য ও সন্ত্রাসের মাধ্যমে মানুষের মধ্যে ভীতি তৈরি করতে তৎপর রয়েছে। এই অবস্থায় দেশের মানুষকে আশ্বস্ত করতে পাঁচ দফা প্রত্যয় ঘোষণা করা হচ্ছে। এগুলো হলো, ‘এক, আগুন–সন্ত্রাস ও নৈরাজ্য প্রতিহত করব। দুই, দেশবিরোধী যেকোনো ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে আমরা রুখে দাঁড়াব। তিন, মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার প্রতিষ্ঠায় আমরা সোচ্চার থাকব। চার, শেখ হাসিনার উন্নয়ন ধারা অব্যাহত রাখতে আমরা কাজ করব এবং পাঁচ, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ বিনির্মাণে আমাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে। জঙ্গিবাদমুক্ত দেশ গড়তে নিয়োজিত থাকব।’

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *