মাদরাসার ৩ শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের দায়ে শিক্ষকের যাবজ্জীবন

যাবজ্জীবন কারাদণ্ড প্রাপ্ত আসামি মো. সুয়াইবুর রহমান

চাঁপাইনবাবগঞ্জে একটি মাদরাসার ৮ থেকে ১০ বছর বয়সী তিন শিশু শিক্ষার্থীকে জোরপূর্বক ধর্ষণের অভিযোগে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে দায়েরকৃত একটি মামলায় ওই মাদরাসার শিক্ষক মো. সুয়াইবুর রহমানকে (৫৪) যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড এবং পঞ্চাশ হাজার টাকা অর্থদণ্ড অনাদায়ে আরো পাঁচ বছর কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন ট্রাইবুনাল।

আজ বুধবার বিকেল চারটায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনাল, চাঁপাইনবাবগঞ্জের বিচারক নরেশ চন্দ্র সরকার (জেলা ও দায়রা জজ) একমাত্র আসামির উপস্থিতিতে রায় ঘোষণা করেন। দণ্ডিত সুয়াইবুর রহমান চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার কানসাট মিলিক (কলকলিয়া) এলাকার মৃত শমসের আলীর ছেলে।

মামলার এজাহার ও আদালত সূত্রে জানা যায় এবং রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী (বিশেষ পি.পি) এনামুল হক বলেন, ২০২২ সালের ১৯ ফেব্রুয়ারি রাতে শিবগঞ্জের কানসাট বাজার এলাকার একটি আবাসিক মাদরাসায় মাদরাসার শিক্ষক ও পরিচালক শুয়াইবুর রহমান মারধরের ভয় দেখিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করেন তারই মাদরাসার ৯ বছরের এক শিশু শিক্ষার্থীকে।

পরের দিন ২০২০ সালের ২০ ফেব্রুয়ারি ছাত্রদের নিকট ঘটনাটি জানতে পেরে স্থানীয়রা ওই শিক্ষককে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে। একই দিন ওই শিশুর মামা বাদী হয়ে শিবগঞ্জ থানায় ওই শিক্ষককে একমাত্র আসামি করে মামলা করেন।
মামলার এজাহারে সুনির্দিষ্ট আরো ২ জনসহ ৮/১০ শিশু শিক্ষার্থীকে ওই শিক্ষক একই কায়দায় ধর্ষণ করেছেন মর্মে অভিযোগ করা হয়। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা (আইও) ও শিবগঞ্জ থানার তৎকালীন উপ-পরিদর্শক(এসআই) আব্দুল বাসির একমাত্র আসামি সূয়াইবুরকে অভিযুক্ত করে ২০২২ সালের ১২ মার্চ আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন।

১১ জনের সাক্ষ্য, প্রমাণ ও শুনানি শেষে ট্রাইবুনাল সুয়াইবুর রহমানকে দোষী সাব্যস্ত করে দণ্ডাদেশ ঘোষণা করেন। আসামি পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন অ্যাড. আফজাল হোসেন।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *