close(x)
 

শেখ হাসিনা ফের প্রধানমন্ত্রী হলে শিক্ষকদের সব দাবি পূরণ হবে: শিক্ষামন্ত্রী

শেখ হাসিনা ফের প্রধানমন্ত্রী হলে শিক্ষকদের সব দাবি পূরণ হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি।

মঙ্গলবার (২৯ আগস্ট) রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদের (স্বাশিপ) আয়োজনে এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা জানান।

শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক নেহাল আহমেদ ও স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদ (স্বাশিপ) সভাপতি অধ্যাপক ড. আবদুল মান্নান চৌধুরী সভায় উপস্থিত ছিলেন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন অধ্যক্ষ মো. শাহজাহান আলম সাজু।

শিক্ষকদের উদ্দেশ্যে মন্ত্রী বলেন, আপনারা ধৈর্য ধরে আছেন, আশায় আছেন, আগামী নির্বাচনের মাধ্যমে শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী হয়ে এলে আপনাদের যত দাবি আছে, যত দ্রুত সম্ভব, তার সব কিছুই পূরণ হবে ইনশাআল্লাহ।

দীপু মনি বলেন, আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থা আমরা যেভাবে চাই, তার মূল কেন্দ্রে শিক্ষক। কাজেই শিক্ষক যদি মানসম্পন্ন না হন, শিক্ষকের মনে যদি প্রশান্তি না থাকে, তিনি যদি মন খুলে তার শিক্ষার্থীকে শেখাতে না পারেন, তাহলে আমরা যত কারিকুলামই করি, যা কিছুই করি, সেখানে ঘাটতি থেকে যাবে। কাজেই শিক্ষকরা জরুরি, প্রধানমন্ত্রী তা ভালো করেই বুঝেন।

তিনি বলেন, আজ পর্যন্ত যা কিছু হয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরেই হয়েছে। তাহলে আপনারা তো আস্থা রাখতে পারেন। আমাদের যতদূর পথ হাঁটার কথা, শেখ হাসিনার হাত ধরেই হাঁটতে হবে।

তিনি আরও বলেন, শিক্ষা ব্যবস্থায় অনেক কিছু চাওয়ার আছে, শিক্ষকদের অনেক কিছু চাওয়ার আছে, এগুলো যৌক্তিক। সেই যৌক্তিক চাওয়াগুলো আমরা নিশ্চয় পূরণ করবো। কিন্তু সেটার জন্য আন্দোলনের সঠিক সময় এখন নয়। আগামী নির্বাচনের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা আবারও দেশের প্রধানমন্ত্রী হবেন ইনশাআল্লাহ। তারপর আমাদের চাওয়া যা কিছু আছে, সবই পূরণ হবে ইনশাল্লাহ।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান জাতীয়করণ প্রসঙ্গে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, যারা সরকারি আছেন, তাদের একরকম দাবি, যারা এমপিওতে আছেন তাদের একরকম দাবি, যারা নন-এমপিও তাদের একরকম। পুরো জিনিসটা বুঝে গুছিয়ে, জটিলতাগুলো দূর করে তারপর করতে হবে। হ-য-ব-র-ল নিয়ে পারবেন?

তিনি বলেন, আমরা দুটি কমিটি করে দিয়েছি, দুদিনের একটি ওয়ার্কশপ করলাম। সবাইকে ডাকলাম। আমাদের নামে যারা কদর্য কথা বলছেন, কুৎসা রটাচ্ছেন তাদেরও বললাম, আসুন। কিন্তু তাদের মধ্যে প্রধান ব্যক্তি ওয়ার্কশপে ছিলেন না। তাদের সহযোগিতা দেওয়ার জন্য সরকার তাদের যেখানে ডেকে নিয়ে আসছে, সেখানেও তারা আসতে রাজি নন। তখন বিএনপি-জামায়াতের সমাবেশ ছিল। তারা সেই সমাবেশে থাকবেন। তাদের নিয়ে নাচানাচি তো দরকার নেই। শিক্ষার্থীদের জিম্মি করে তারা দাবি আদায়ের মৌসুম মনে করে, বিরোধী দলের তথাকথিত আন্দোলনের পালে হাওয়া লাগাবার জন্য তারা রাস্তায় বসবেন, সেটিকে প্রশ্রয় দেওয়ার কোনো কারণ নেই।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *